বিনোদন

লিটনের গাঁজার ধোঁয়ায় অজ্ঞান ডেঙ্গু বাহিনী

প্রতিদিনের মতই লিটনের ফ্ল্যাটে বসেই গাঁজা খাচ্ছিলেন গাঁজাখোর লিটন। গাঁজা খেতে খেতে টিভির ছেড়ে নিউজ চ্যানেল দেখতে লাগলেন তিনি। প্রতিটি চ্যানেলেই ডেঙ্গু মশা নিয়ে সংবাদ পরিবেশ্ন হচ্ছে কোথাও বা ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত মানুষদের দেখানো হচ্ছে। সারা ঢাকা শহর জুড়ে ডেঙ্গুর খবর। এ যেন গুজবের মতই ছড়িয়ে পরছে চারপাশে। এদিকে এক দল বলছে ডেঙ্গু মশা সরকার এনেছে মানুষ মারার জন্য এই নিয়ে বেশ সমালোচনা চলছে।
এসব ঘটনা দেখে ব্যথিত হোন লিটন। দেশবাসীর জন্য তার আকুল হৃদয় ভারাক্রান্ত হয়ে উঠে। গাঁজা টানতে ভাবতে থাকেন কিভাবে এই দেশের মানুষদের বাঁচানো যায়। ৬৯ ঘন্টা তিনি চিন্তা ভাবনার পর তিনি সিদ্ধান্তে আসেন মশাদের সাথে যুদ্ধে নামতে হবে, তাদের হাতে নয় ভাতে মারতে হবে। তিনি এক যুগান্তকারী পদ্ধতি আবিষ্কার করে ফেলেন।
সন্ধ্যার সময় লিটন সব দরজা জানালা খুলে দেন যাতে মশারা নির্বিঘ্নে লিটনের ফ্ল্যাটে প্রবেশ করতে পারে। সফল হলেন লিটন। মিনিটেই কয়েক লক্ষ ডেঙ্গু বাহিনী তার ঘরে ঢুকে পরে। মশাদের আগমন দেখতেই লিটন গাঁজা খাওয়া শুরু করেন এবং ঘর গাঁজার ধোঁয়ায় পরিপূর্ণ করে ফেলেন। ফলে ডেঙ্গু বাহিনী গাঁজার ধোঁয়া সেবন করে তারা আসক্ত হয়ে পরে অজ্ঞান হতে থাকে । এক পর্যায়ে ডেঙ্গু বাহিনীর সকলে নিহত হয়।

এই কার্যকারী ডেঙ্গু আবিষ্কারক লিটন দেশবাসীকে গাঁজা সেবন করে নিজেদের ডেঙ্গু রোগ থেকে বাঁচানোর পরামর্শ দিয়েছেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।